1. akaskuakata2020@gmail.com : akas :
  2. bdpc2018@gmail.com : desktop2 :
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ-
একটি জরুরি ঘোষনা:- গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত।বরিশাল বিভাগীয় প্রেসক্লাব। যাহার গভ: রেজি: নং- সি-১৪৬৭৫৮। যাহারা গত ১৬/৭/২০২২ ইং তারিখ রোজ শনিবার সকাল ১০ ঘটিকার সময় বরিশাল বিভাগীয় প্রেসক্লাবের জরুরী সভায়। জমজম টাওয়ার রুপাতলী বরিশাল। যাহারা উপস্থিত হইতে পারেননি তাহারা আগামী ৩০/৭/ ২০২২ ইং তারিখের মধ্যে বরিশাল বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক এইচ.এম.শাহআলম শাহ এর সাথে এই নাম্বারে ০১৭১৫৭১৪ ৯৯৩ যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। যাহারা যোগাযোগ করিতে ব্যর্থ হইবেন তাহাদের সদস্য পদ বাতিল ও বহিস্কার বলিয়া গণ্য হইবে । যাহাদের সদস্য পদ ও পদবী বলবৎ থাকিবে তাহারা আগামী ১৫/৮/২০২২ ইং তারিখের মধ্যে সদস্য ফি ১০০০ টাকা নির্ধারণ করা হইয়াছে। সদস‍্য ফি সহ বরিশাল বিভাগীয়  প্রেসক্লাবের (পরিচয় পত্র) আইডি কার্ড  পাওয়ার জন্য জরুরি ভিত্তিতে সাধারণ সম্পাদক এইচ.এম. শাহআলম শাহ এর সাথে যোগাযোগ করিবেন।এবং যাহারা নতুন সদস্য হইতে চান তাহারা দ্রুত যোগাযোগ করুন।এছাড়াও বরিশাল বিভাগের সকল জেলায়, উপজেলায়, পৌরসভায় দ্রুত কমিটি দেওয়া হইবে। আদেশ ক্রমে সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক। যোগাযোগ : সম্পদক : এইচ.এম.শাহআলম শাহ-বরিশাল বিভাগীয় প্রেসক্লাব। মোবাইল নং 01715714993  ।

কুয়াকাটায় সার সংকটে কৃষক দিশেহারা

  • আপডেট সময়ঃ মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৮১৯ বার

হাফিজুর রহমান আকাশ, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা।।
পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় ইউরিয়া সারের সংকটে কৃষকদের মধ্যে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে এ সংকট দেখা দিয়েছে। এর আগেও কৃষকরা চাহিদা মতো সার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে অনেকের অভিযোগ অনেক দোকানে সার থাকলেও বেশি দামে বিক্রয় করার আসায় এখন বিক্রয় করছে না। ফলে কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এ অঞ্চলের কৃষকরা আমন ধানের বীজ রোপন সবেমাত্র শেষ করেছেন। কৃষি অফিস বলছে ২-৩ দিনের মধ্যে এ সংকট কেটে যাবে। আর কৃষকরা বলছে বর্তমান আবহাওয়া জমিতে সার ছিটানোর উপযোগী সময়। সরেজমিনে দেখা গেছে, লতাচাপলী ইউনিয়নের কৃষকরা আলীপুর বাজারে সার কিনতে এসে পাচ্ছে না। অনেক কৃষকই নগদ টাকায় ৪০ হাজার টাকা দরে চার কুড়া জমি রেখেছেন অনেকে আবার রেখেছেন ৪০মন ধানে যদি জমিতে সার দিতে না পারে তাহলে লোকসান গুনতে হবে হাজার হাজার টাকা। তাদের চোখে মুখে হতাশার ছাপ লক্ষ্য করা গেছে। জমিতে সার ছিটানোর উপযোগী সময় সার না পেলে তাদের অপূরণীয় ক্ষতি হবে এমনটাই জানিয়েছেন কৃষকরা। লতাচাপলী ইউনিয়নের দিয়ার আমখোলা গ্রামের কৃষক নেছার উদ্দিন আলীপুর বাজারে এসে সার কিনতে পারে নি। তিনি বলেন, আমি প্রত্যেকটি দোকানে গিয়েছি। কিন্তু সার পাইনি। আমার জমিতে এখন সার না দিলে ব্যাপক ক্ষতি হবে। তার কথার সূত্র ধরে সারের দোকানে গিয়ে জানা গেছে, আলীপুর বাজারের কোন দোকানে সার নেই। দুই এক বস্তা সার আছে খুচরা বিক্রয় করার জন্য। তবে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে সকল দোকানদার সার বিক্রয় করছেন এ কথ সত্য। তাদের দাবি সরকার প্রতি বস্তা সারের মূল্য ৮’শ টাকা নির্ধারণ করলেও ৮’শ ত্রিশ টাকায় দোকানে সার পৌঁছে। তারা ৮’শ সত্তর টাকা সার বিক্রয় করেন। আগামী ৩-৪ দিনের মধ্যে সার আসবে বলে শোনা যাচ্ছে। বর্তমানে সারের পর্যাপ্ত চাহিদা রয়েছে।

সোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

এ জাতীয় আরো খবর

আজকের বাংলা তারিখ

  • আজ বুধবার, ১৯শে জুন, ২০২৪ ইং
  • ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
  • ১৩ই জ্বিলহজ্জ, ১৪৪৫ হিজরী
  • এখন সময়, সন্ধ্যা ৬:০৩